মেহেরপুর জেলা
জেলায় পরিনত হয় ১৯৮৪ সালে ২৪ ফেব্রুয়ারী
মেহেরপুর জেলার নাম করন সম্পর্কে অনেকেই হয়তো অনেক রকম শুনেছেন
মেহের আলী নামে একজন জনৈক ব্যাক্তি ছিলেন তার নামে নাম করন হয় মেহেরপুর জেলা
আবার
মিহির নামে একজন লোক বাস করতেন তো
মিহিরের নাম থেকে মিহিরপুর এবং পরবর্তীতে তা মেহেরপুর হয়

অন্যান্য জেলার বা অঞ্চলের মতো আমাদের মেহেরপুর জেলায় বিখ্যাত খাবার আছে

আপনি কি জানতেন মেহেরপুর জেলায় একটি
বিখ্যাত খাবার আছে যা কিনা বাংলাদেশের প্রায় সব মানুষের প্রিয় খাবার

নিশ্চয়ই নামটা বা বিস্তারিত জানতে ইচ্ছে করছে

সেই বিখ্যাত খাবারের নাম সাবিত্রি
এটা শুধু মেহেরপুর জেলায় পাওয়া যায়
আমরা তো বাঙ্গালী ভোজন প্রিয় লোক
খাবার শেষ পাতে মিষ্টি না হলে চলেনা তাই এই জেলার স্থানীয় লোকগুলো সাবিত্রি দিয়ে মিষ্টি মুখ করান

যারা মেহেরপুর জেলায় বেড়াতে আসে তাদের এই সাবিত্রি মিষ্টি দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়
আরো একটা মজার বিষয়
যারাই মেহেরপুর জেলায় বেড়াতে আসে এই মিষ্টির মিষ্টি প্রেমিক হয়ে উঠে

আপনি কি জানেন মেহেরপুর জেলার মুজিবনগর বাংলাদেশের ইতিহাসে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে
মুক্তিযুদ্ধের সময় অস্থায়ী রাজধানী ছিল মুজিবনগর

মুজিবনগরে আছে একটা বিশাল মানচিত্র যেখানে ১১ টি সেক্টর করা আছে মুক্তিযুদ্ধের সময় কালে
শেখ মুজিবর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ প্রথম অস্থায়ী সরকারের শপথ গ্রহণ এবং পাকিস্তানি বাহিনীর আত্মসমর্পণের দৃশ্য বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের পরিক্রমা জানতে এবং মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহাসিক এ স্থান দেখতে পর্যটকরা ভিড় করেন মেহেরপুরে

আপনি যদি বই না পড়ে মুক্তিযুদ্ধের কথা জানতে চান তাহলে চলে আসুন মেহেরপুর জেলার মুজিবনগর
মুক্তিযুুদ্ধের প্রতিটি ইতিহাস আছে মুজিবনগরে

আমি যখন ছোট ছিলাম তখন সেখানে নিয়ে যেতেন আব্বু তো মুক্তিযুদ্ধের সময় কালে অনেক ছবি মূর্তি আছে
যেগুলো আমি বই না পড়ে এই ছবি গুলো দেখেই আর বই মুখস্থ করা লাগেনী

তাই আপনিও আমার মতো করতে চাইলে মেহেরপুর জেলার মুজিবনগরে চলে আসুন ভাড়া কথা বলতে গেলে ৫০০-১২০০ টাকার মধ্যেই হয়ে যাবে

একটা বিশাল আম বাগান আছে(বৈদ্যনাথতলা) অনেক পুরনো গাছগুলো
চারিদিকে শুধু আম গাছ আর আম গাছ সেখানে
সমাবেশ করা হয়
পিকনিকের রান্না ও খাওয়া দাওয়া করা হয়
আম বাগানে

১৯৭১ সালে যে সব বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং যারা পাকিস্তানি সৈনিকের হাতে নির্মমভাবে নিহত হয়েছে তাঁদের স্মৃতি রক্ষার্থে মেহেরপুর পৌর কবরস্থানের পাশে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে প্রতি বছর মহান স্বাধীনতা ও বিজয় দিবসে মাল্যদান করে তাঁদের শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করা হয়ে থাকে

আপনি যদি তৎকালীন মুক্তিযুদ্ধের ঘটনা গুলোকে বাস্তব রুপে উপলদ্ধি করতে চান তাহলে
আপনাকে নিশ্চিত মেহেরপুর জেলার মুজিবনগর আসা লাগবেই
কারন এটা তো মুক্তিযুদ্ধের অস্থায়ী রাজধানী
আর শেখ মুজিবুর রহমানের নাম অনুসারে মুজিবনগর নাম করন করা হয়

Credit By:Shahariar Gangni Meherpur

Leave a Reply